বেলকুচি পৌর ভোটের মাঠে সাংবাদিক হত্যা মামলার আসামি মিরুকে দিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টির অভিযোগ

 

নিজস্ব প্রতিবেদক
দিন যতই যাচ্ছে সিরাজগঞ্জের বেলকুচি পৌরসভার ভোটের মাঠে ততই তোরজোর শুরু
হইছে প্রার্থী ও ভোটারদের মধ্যে। কে কার আগে ভোট চাইবে, দিবে নানা রকম
প্রতিশ্রুতি এমন প্রতিযোগিতা চলছে। এছাড়া সকাল থেকে রাত অবধি চলছে
গণসংযোগ ও প্রচারনা। তবে ভোটের মাঠে আতঙ্ক ও উৎতাপ ছড়াতে বাহিরাগতদের
আনাগোনা দিনকে দিন বেড়েই চলছে। বিশেষ করে সমকাল পত্রিকার সাংবাদিক শিমুল
হত্যার চাঞ্চল্যকর আসামি হালিমুল হক মিরুকে দিয়ে নৌকা প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচারণায় সাধারন ভোটারদে মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এতে পৌষের শীতকে হার মানিয়ে নির্বাচনী পরিবেশ গরম হয়েছে।

এদিকে অব্যাহতি পাওয়া জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি আবদুল লতিফ বিশ্বাসের ঘনিষ্ট বন্ধু হিসেবে পরিচিত মিরুর কয়েকটি পথ সভার বক্তব্য অন্য প্রার্থী
ও ভোটারদের সতর্কতা ও হুমকি বার্তা দেয়া হচ্ছে বলে পৌরসভা নির্বাচনে তৃনামূল ভোটে বিজয়ী উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক
নারিকেল গাছ প্রতিকের স্বতন্ত্র প্রার্থী সাজ্জাদুল হক রেজা অভিযোগ করেছেন। রেজা আরও জানান, বেলকুচি পৌরসভা একটি ব্যবসায়িক এলাকা অধ্যুষিত।
পৌরসভার অধিকাংশ ভোটার তাঁত কাপড় ব্যবসার সাথে জড়িত। সরলমনা ভোটাররা যেন নির্ভিগ্নে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেন এমন
পরিবেশ সৃষ্টিতে সংশ্লিষ্টদের হস্তক্ষেপ চাই। বিশেষ করে পৌর এলাকায় ভোটকে
কেন্দ্র করে বহিরাগতদের প্রবেশ ও আতঙ্ক সৃষ্টিতে নৌকার প্রার্থী শাহজাদপুরের সমকাল পত্রিকার সাংবাদিক শিমুল হত্যা মামলায় ৩ বছর কারাভোগের পর জামিনে থাকা সন্ত্রাসী মিরুকে নিয়ে প্রচারণা সভার অভিযোগ তোলেন। পথ সভায় তিনি নানা রকম হুমকি প্রদর্শন করে বক্তব্য দিচ্ছেন। এবিষয়ে সাবেক
মন্ত্রী আবদুল লতিফ বিশ্বাসের মেয়ে সুমা বিশ্বাস বলেন, সাংবাদিক শিমুল হত্যার পর খুনী মিরুর সর্টগান হাতে নিয়ে বীরদর্পে হেটে বেড়ানোর ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও টেলিভিশনে প্রচার হয়। তাই তার মতো হত্যা মামলার আসামিকে নিয়ে পথ সভা করায় কি বার্তা দিতে চান নৌকার প্রার্থী এটা সকলেই
বুঝে। তবে পৌর এলাকার জনগন বিতর্কিত ব্যক্তিদের পৌর এলাকা থেকে বের করে
দিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *